মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২২nd August ২০১৯

বস্ত্রসেল

       

 

 

 

বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের সিংহভাগ তৈরি পোশাক খাত হতে অর্জিত হয়।  ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ খাতে মোট রপ্তানি আয় হয়েছে ৩৪.১৩বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত অর্থবছরের তুলনায় ১১.৪৯% বেশি। তন্মধ্যে ওভেন গার্মেন্টস থেকে রপ্তানি আয় হয়েছে ১৭.২৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত অর্থবছরের রপ্তানি আয়ের তুলনায় ১১.৭৯% বেশি এবং নীট গার্মেন্টস থেকে আয় হয়েছে ১৬.৮৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত অর্থ বছরের রপ্তানি আয়ের ১১.১৯% বেশি। বর্তমানে এ খাতে প্রায় ৪.৫ মিলিয়ন শ্রমিক কর্মরত আছে তন্মধ্যে নারী শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ৬০ শতাংশ। নারীর ক্ষমতায়নে এ খাত গুরত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখছে। তাছাড়া তৈরী পোশাক শিল্পের কল্যাণে বিভিন্ন সহায়ক সেবা খাত যেমন ব্যাংক, বীমা, আইটি, পরিবহন, পর্যটন  এরুপ অনেক খাত গড়ে উঠেছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বস্ত্র সেল থেকে তৈরি পোশাক শিল্পের রপ্তানি সংক্রান্ত বিষয়ে নীতিগত সহায়তা প্রদান করা হয়ে থাকে। ভবিষৎ কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়ন ও তৈরি পোশাক রপ্তানিতে উদ্ভূত সমস্যাবলী নিরসন, পোশাক শিল্পের কমপ্লায়েন্স প্রতিপালনে নীতিগত সহায়তা, শ্রমিক অসন্তোষ নিরসনে যৌক্তিক ও আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণ, শ্রমিক অধিকার নিশ্চিতকরণ, তৈরি পোশাকের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার, জিএসপি সংক্রান্ত, তৈরি পোশাক শিল্পের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সকল অংশীজনের (স্টেক হোল্ডার) এর সহিত সমন্বয় সাধন, তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিক/কর্মচারীদের প্রশিক্ষণে সহয়তা ইত্যাদি কাজসমূহ বস্ত্রসেল থেকে করা হয়ে থাকে।

প্রধান কার্যক্রম

 

১.০  তৈরি পোশাক খাতের কমপ্লায়েন্স প্রতিপালন নিশ্চিতকল্পে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রীকে আহবায়ক এবং মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, শ্রম  ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়কে সহ-আহবায়ক করে সংশ্লিষ্ট সরকারি, বেসরকারি এবং উন্নয়ন সহযোগীদের নিয়ে “সোশাল কমপ্লায়েন্স ফোরাম ফর আরএমজি” গঠন করা হয়েছে। শ্রমিকদের ন্যুনতম মজুরি, সময়মত বেতন ও ভাতাদি প্রদান, ছুটি,  নিয়োগ ও পরিচয়পত্র, কর্মপরিবেশ উন্নয়ন, কার‍খানার দূর্ঘটনার ঝুঁকি কমানোসহ কমপ্লায়েন্স প্রতিপালন সংক্রান্ত ইস্যুসমূহে উক্ত ফোরাম সুপারিশ করে থাকে।

 

২.০ তৈরি পোশাক শিল্পে শ্রমিক অধিকার ও নিরাপদ কর্মপরিবেশ উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকার আইএলও, ইউরোপীয় কমিশন ও যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগে ৮ জুলাই ২০১৩ তারিখে সুই্জারল্যান্ডের জেনেভাতে Sustainability Compact নামক কর্ম-পরিকল্পনা গ্রহণ করে। এই ফোরামের সভার সুপারিশের আলোকে বাংলাদেশ শ্রম আইন সংশোধন করা হয়েছে এবং ইপিজেড শ্রম আইন আন্তর্জাতিক শ্রম মানদন্ডের সাথে সামঞ্জস্য করে প্রণয়ন করা হয়েছে।

 

৩.০  রানা প্লাজা ভবন দূর্ঘটনা এবং তাজরীন ফ্যাশনে অগ্নিকাণ্ডের পর কমপ্লায়েন্স বাস্তবায়ন পর্যালোচনা এবং প্রয়োজনীয় সুপারিশ প্রণয়নের জন্য বাংলাদেশ সরকারের ৩ জন সচিব (বাণিজ্য সচিব, শ্রম সচিব,পররাষ্ট্র সচিব), তৈরি পোশাকের প্রধান ক্রেতা দেশসমূহের ৫ জন রাষ্ট্রদূত এবং আইএলও সহযোগে ঢাকায় উচ্চ পর্যায়ের (৩+৫+১) ফোরাম গঠিত হয়েছে। এই ফোরাম তৈরি পোশাক শিল্পে Sustainability Compact-এর সুপারিশ বাস্তবায়ন এবং আইএলও-এর আরএমজি সংক্রান্ত কর্মসূচি  বাস্তবায়ন পর্যবেক্ষণ করে  এবং সুপারিশ করে থাকে।

 

৪.০  তৈরি পোশাক শিল্পে কর্মরত শ্রমিক ও কর্মচারীদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে ওভেন, নীট, সুয়েটার মেশিন অপারেশন, কমপ্লায়েন্স নর্মস, প্রোডাকশন প্লানিং এন্ড ম্যানেজম্যান্ট  এবং ইনভেন্ট্রি ম্যানেজমেন্ট-এর উপর ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে ১৫৩০ জন শ্রমিক ও ব্যবস্থাপককে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এ খাতে দক্ষ মিড লেভেল ম্যানেজার গড়ে তোলার লক্ষ্যে কর্মরত ম্যানেজারদের জন্য ৯ মাস মেয়াদি ডিপ্লোমা সার্টিফিকেট কোর্স চালু করা হচ্ছে। তাছাড়া, সদ্য সংশোধিত প্রশিক্ষণ প্রদান নীতিমালায় তৈরি পোশাক শিল্পে ভবিষ্যতে কাজ করবে (would be worker) এমন জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণ প্রদানের সুযোগ রাখা হয়েছে। এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচি কারখানার উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে।

 

৫.০   বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবকে আহবায়ক করে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ের প্রতিনিধি সহযোগে ১৬ সদস্যবিশিষ্ট ‘তৈরি পোশাক শিল্পের ব্যবসায় সম্প্রসারণ ও সহজীকরণ বিষয়ক টাস্কফোর্স’ গঠন করা হয়। তৈরি পোশাক শিল্পের ব্যবসায় সম্প্রসারণ ও সহজীকরণে এই টাস্কফোর্স কাজ করে যাচ্ছে। তাছাড়াও বস্ত্রসেল থেকে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতের উন্নয়নে নীতিগত সহায়তা (Policy Support) এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদানের পদক্ষেপ গ্রহন করা হচ্ছে। রপ্তানি প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রাখার মাধ্যমে ২০২১ সাল নাগাদ তৈরি পোশাক খাতে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি আয় অর্জনের লক্ষ্যে কার্যক্রম চলমান আছে।
                                                                                                                                          


Share with :

Facebook Facebook